তারিখ : ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ইউএনও ও সহকারী কমিশনার(ভূমি) ছাড়াই চলছে ত্রিশাল

ইউএনও ও সহকারী কমিশনার(ভূমি) ছাড়াই চলছে  ত্রিশাল উপজেলা প্রশাসন
[ভালুকা ডট কম : ২০ জানুয়ারী]
ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় গত তিন সপ্তাহ ধরে প্রশাসনিক সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ দুটি  উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর পদ খালি রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পদটিতে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে ভালুকার উপজেলার নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল কর্মরত থাকলেও তিনিও অষ্ট্রেলিয়া সফরে যাওয়ায়  গত বৃহস্পতিবার থেকে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে ত্রিশালের ইউএনওর দায়িত্ব পেয়েছেন ময়মনসিংহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাফিজুর রহমান। ত্রিশালের গুরুত্বপূর্ণ এ দুটি পদে কেউ না থাকায় প্রশাসনিক কাজে ব্যাপক স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ময়মনসিংহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার অতিগুরুত্বপূর্ণ কিছু কাজ করলেও অন্যসব কাজ বন্ধ রয়েছে।

উপজেলা পরিষদ সূত্রে জানা যায়, গত ১ জানুয়ারি ত্রিশালের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকির বদলী হয়ে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চলে যান। ২৯ ডিসেম্বর সহকারী কমিশনার (ভূমি) এরশাদ উদ্দিন সিনিয়র সহকারী সচিব হিসেবে পদন্নোতি পেয়ে বদলী হন। এরপর থেকে এ দুটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক পদ শূন্য রয়েছে।=এদিকে ত্রিশালে সহকারী কমিশনার(ভূমি) না থাকার উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জমা-খারিজ কার্যক্রম বন্ধ হয়ে আছে। প্রতিদিন ভূমি অফিসে এসে ফিরে যাচ্ছেন জমির মালিকরা। জমি খারিজ কার্যক্রম বন্ধ থাকায় উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল কমে গেছে। সেখানে দৈনিক শতাধিক দলিল হতো সেখানে অর্ধেক হচ্ছে।

ত্রিশাল সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক মামুনুর রশিদ  সরকার জানান, জমা-খারিজ বন্ধ থাকার কারণে প্রতিদিন যে পরিমান দলিল হতো তা কমে গেছে। এখন অর্ধেকের কম দলিল হচ্ছে। জমা-খারিজ ছাড়া কোন জমি রেজিস্ট্রি করা যায় না।

ত্রিশাল ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা ফিরোজ কবীর জানান, জমা-খারিজ কার্যক্রম বন্ধ আছে। এসিল্যান্ড কিংবা ইউএনও স্যার না আসা পর্যন্ত জমা খারিজ হবে না। তবে খাজনা আদায় চলছে।

ওদিকে উপজেলার বিভিন্ন কমিটির সভাপতি হচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে ইউএনও না থাকার কারণে স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। বিভিন্ন দিবসগুলো উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যানরা মিলে উপজেলার অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে পালন করছেন।

ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী অফিসের অফিস সহকারী শাহজাহান কবীর জানান, আমরা রুটিন কাজগুলো করছি। আগে ভালুকার ইউএনও স্যার আসতেন তিনি বিদেশ চলে যাওয়ার পর ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ইউএনও স্যার এসে কাজ করছেন। আমাদের জরুরী কোন প্রয়োজন হলে সদর উপজেলার ইউএনও স্যারের কাছ  থেকে স্বাক্ষর নিয়ে আসছি। এখনও কোন নিদের্শনা পায়নি কবে নতুন ইউএনও এবং এসিল্যান্ড স্যার  আসবেন।

ত্রিশালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পদ খালি থাকার বিষয়ে ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা হক জানান, খুব দ্রুতই ইউএনও যোগদান করবেন। বিষয়টি নিয়ে আমরা বিভাগীয় কমিশনার স্যারের সাথে কথা বলবো।

ত্রিশাল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন সরকার জানান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা না থাকায় কিছুটা স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। আমরা বিষয়টি জেলা প্রশাসকে জানিয়েছি এবং দ্রুত ইউএনও ও এসিল্যান্ড দেওয়ার জন্য বলেছি।

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মোঃ মিজানুর রহমান  জানান,ত্রিশালে নতুন করে  দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে। এখনও ত্রিশালে কাউকে স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। খুব দ্রুত ইউএনও ও এসিল্যান্ড পাঠানো হবে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকার বাইরে বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৩১ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই